ভোলার রূপালী দ্বীপ মনপুরার হাতছানি

মনপুরায় হরিনের নাচন। ছবি সংগৃহীত

ভোলা : চারদিকে সাগরের পানি। মাঝখানে একটি দ্বীপ। যে কোন পর্যটকের কানে আসে প্রমত্তা মেঘনার গর্জন। চোখে ভাসে হরিনের নাচন। রাখালের ইশারায় ছুটছে মহিষের পাল। কাঁচা দুধে চুমুক দিয়ে গলদগরণ করা যায় মন চাইলেই। স্বাদ নেয়া যায় প্রতি মুহূর্মে। আর মহিষের দুধ দিয়ে তৈরি দধির খ্যাতি দেশজুড়ে। এসবের পুরোটাই উপভোগ করতে পারবেন ভোলার রূপালি দ্বীপ খ্যাত মনপুরায়। এই শীতে ছুটে যেতে পারেন বন্ধু-বান্ধব পরিবার পরিজন নিয়ে। ঘুরে আসতে পারেন প্রকৃতির নির্যাসে তৈরি মেঘনার কোলে গড়ে উঠা দ্বীপ মনপুরা। বলতে পারেন প্রতিনিদই ভ্রমণ পিপাসুদের হাতছানি দিয়ে ডাকছে মেঘনার বরপুত্র মনপুরা।

আঁকা বাঁকা নদী আর মনপুরার চতুর্দিকে বেড়ীবাঁধ, বিভিন্ন ধরনের ধানের ক্ষেত, বিশাল ম্যানগ্রোভ প্রজাতির গাছের বাগান এবং দ্বীপজুড়ে শত শত হরিণের নাচন। মেঘনার কোলে লালিত চতুর্দিকে মেঘনা নদীবেষ্টিত সবুজ শ্যামল ঘেরা জেলার মুল ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপরূপ লীলা ভূমি রূপালী দ্বীপ মনপুরা।

ভোলা জেলা সদর থেকে ৮০ কিলোমিটার দক্ষিণ পূর্ব দিকে বঙ্গোপসাগরের কোল ঘেঁষে মেঘনার মোহনায় ৪টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত মনপুরা উপজেলা প্রায় লক্ষাধিক লোকের বসবাস। মিয়া জমিরশাহ’র স্মৃতি বিজড়িত মনপুরা দ্বীপ অতি প্রাচীন। একসময় এ দ্বীপে পুর্তগীজদের আস্তানা ছিল। তারই নিদর্শন হিসেবে দেখতে পাওয়া যায় কেশওয়ালা কুকুর। মনপুরার সবচেয়ে আকর্ষণীয় বিষয় হচ্ছে ম্যানগ্রোভ প্রজাতির সারিসারি বাগান।

মনপুরায় সূর্য উদয় এবং সূর্যাস্তও উপভোগ করা যায়। এখানে ছোট বড় ১০-১৫ টি চর ও বন বিভাগের প্রচেষ্টায় গড়ে উঠেছে সবুজ বিপ্লব। মাইলের পর মাইল সবুজ বৃক্ষরাজির বিশাল ক্যাম্পাস মনপুরাকে সাজিয়েছে সবুজের সমারোহে। শীত মৌসুমে শতশত পাখির কলকাকলিতে মুখরিত থাকে এসব চরাঞ্চল। এই চরগুলো হলো চর নজরুল, চর পাতালিয়া, চর পিয়াল, চরনিজাম, চর সামসুউদ্দিন, লালচর, ডাল চর, বদনার চর, কলাতলীর চর ইত্যাদি। মনপুরা সদর থেকে দুই কিলোমিটার উত্তর পূর্ব পাশে গড়ে উঠেছে মনপুরা ফিশারিজ লি.। খামার বাড়িতে সারি সারি নারিকেল গাছ ও বিশাল-৪-৫টি পুকুর রয়েছে। দৃষ্টিনন্দন খামার বাড়িটি হতে পারে পর্যটকদের বাড়তি আকর্ষণ। খামার বাড়িটির পূর্ব পাশেই বিশাল ম্যানগ্রোভ প্রজাতির বাগান। এখানে শুধু প্রাকৃতিক সৌন্দর্যই দেখা যায়না এখানে খাবারের রীতিমত আইটেম ছাড়াও বিশেষ বিশেষ কিছু খাবার লক্ষ করা যায়। শীতের হাঁস, মহিষের কাচা দধি, টাটকা ইলিশ, বড় কই, জাগুর, কোরাল, বোয়াল ও গলদা চিংড়ি। মেঘনা নদী থেকে ধরে আনা টাটকা ইলিশ ও চর থেকে আনা মহিষের কাঁচা দুধের স্বাদই আলাদা।

মনপুরায় হরিনের নাচন। ছবি সংগৃহীত

মনপুরার মূল ভুখণ্ডে কোরেজডেম ম্যানগ্রোব বনে দেখতে পাওয়া যায় হরিণের পাল। প্রতিদিন বিকাল বেলা এসব হরিণ দেখতে পর্যটকরা ভীড় করে। মূল ভূখণ্ডে চরফৈজুদ্দিন টু সাকুচিয়া মধ্যবর্তী রয়েছে সংযোগ বিশাল ব্রিজ। প্রতিদিন বিকালে ভ্রমণ পিপাষু মানুষ সুন্দরতম ব্রিজ দেখার জন্য ভিড় করে। প্রকৃতির লীলাভুমি মনপুরায় না গেলে বুঝাই যাবেনা কি সৌন্দর্য লুকায়িত আছে এই মায়ার দ্বীপ মনপুরায়।

যোগাযোগ ব্যবস্থা : রুটিন মাফিক যোগাযোগ ব্যবস্থা। প্রতিদিন ঢাকা থেকে ১টি লঞ্চ বিকাল সাড়ে ৫টায় মনপুরা ও হাতিয়ার উদ্দেশ্যে ছেড়ে পরদিন সকাল ৬টা পৌঁছে মনপুরা। অন্য একটি লঞ্চ ঢাকা থেকে ১ দিন পর পর ছাড়ে। মনপুরার রামনেওয়াজ লঞ্চ ঘাট থেকে প্রতিদিন দুপর ২টায় ঢাকার উদ্দেশ্যে একটি লঞ্চ ছাড়ে। এছাড়া বিভিন্নভাবে স্থল ও নৌ পথ দিয়ে যাতায়াতের ব্যবস্থা রয়েছে।

মনপুরা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ সভাপতি মিসেস শেলিনা আকতার চৌধুরী বলেন, ‘একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমার একটি স্বপ্ন মনপুরাকে পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা। মনপুরা বঙ্গবন্ধুর চিন্তানিবাস স্থাপনের জন্য চরফ্যাসন ও মনপুরার উন্নয়নের রোল মডেল পরিবেশ ও বন উপমন্ত্রী আবদুল্যাহ আল ইসলাম জ্যাকব এম পি কাজ করছেন। বঙ্গবন্ধুর ‌’চিন্তানিবাস’ স্থাপন হলেই পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলা সহজ হবে।’

শেয়ার করুন