গাড়ীর ওই মরণ গতি কখন থামবে ?

আজহার মাহমুদ : বেপরোয়া চালক, গাড়ির গতি থাছে না। আর মৃত্যুর মিছিলও থামছে না। সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু, এখন অসহায় সাধারণ মানুষের নিত্যদিনের সঙ্গি।

পরিসংখ্যান বলছে, চলতি বছরের জানুয়ারী থেকে জুন পর্যন্ত প্রথম ছয় মাসে সারাদেশে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছে ৩০২৬ জন। আহত হয়েছেন ৮৫২০ জন। এ ছয় মাসে দুর্ঘটনা ঘটেছে ৮৬০টিরও বেশী। এভাবে প্রতিদিন কোনো না কোনো সড়ক দূর্ঘটনা ঘটছে।

দেশের এমন কোনো পত্র পত্রিকা নেই যেখানে_সড়ক দুর্ঘটনা আর বেপরোয়া গাড়ি চালানো নিয়ে লেখালেখি হয়নি। যত অনিয়ম, নৈরাজ্যের শীর্ষে গণপরিবহন, দুর্ঘটনা নয় যেন হত্যাকান্ড চলছে, আর কত রাজীবের প্রাণ দিতে হবে_এসব শিরোনামে লিখা লেখক হয়রান দিশেহারা। তবুও থামছে না সড়ক দুর্ঘটনা। থামছে মৃত্যুর মিছিল।

এভাবে লিখকরা লিখছে, পত্রিকায় প্রকাশ হচ্ছে আর পাঠকরা পড়ছে। আর সংশ্লিষ্ট প্রশাসন কি করছে তা দেখা দায়ভার সাধারণ মানুষের উপরই রইলো।

সত্যি বলতে এর কোনো প্রতিকার হচ্ছে না। সড়ক দুর্ঘটনা চলছে অপ্রতিরোদ্ধ ভাবে। গাড়ির মরণ গতিও থামছেনা, আর মনে হয়না থামবে। এসকল গাড়ি চালকের আচরণ দেখলে মনে হয় যেন এটা চলছে আর চলবে। এটা যেনো তাদের জন্মগত অধিকার। তারা যেনো তাদের অধিকার রক্ষা করার জন্য সড়কে নামে। মানুষের প্রাণ হারানোর বিষয়টা যেনো তাদের কাছে সাহস। সেই সাহসের উপর ভর করে তারা আরো বেপরোয়া ভাবে গাড়ি চালাতে থাকে। এত যেনো তাদের কিছুই হবে না। সত্যি বলতে এদের কিছুই হয়না। সড়ক দুর্ঘটনাজনিত মামলাও কম হয়নি।

বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতি সূত্র থেকে জানা যায়, এসব মামলা গুলো হয়েছে দন্ডবিধির ২৭৯, ৩০৪ (ক), ৩০৪ (খ), ৩৩৭, ৩৩৮ এবং ৩৩৮ (ক) ধারায়।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, দুর্ঘটনার পর দায়ী চালকদের বড় অংশই পার পেয়ে যায় পুলিশ ও যানবাহন মালিকদের গোপন সমঝোতায়। উপযুক্ত আইন করে সঠিকভাবে তার বাস্তবায়ন হলে চালকদের বেপরোয়া গতি এবং সড়কের মৃত্যু মিছিল কমবে। এর জন্য প্রয়োজন উপযুক্ত এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা। অনুসন্ধানে জানা যায়, গাড়ির অতিরিক্ত গতি, গাড়ি চালানোর লাইসেন্স না থাকা, চালকের দক্ষতার অভাব, নেশাগ্রস্থ চালক, সড়ক-মহাসড়কের বেহাল অবস্থা, গাড়ির ফিটনেস না থাকা ইত্যাদি সড়ক দুর্ঘটনার মূল কারণ। আর দুর্ঘটনার তদন্তে দেখা গেছে ৯০ শতাংশ দুর্ঘটনার কারণ হচ্ছে নিয়ন্ত্রণহীন গতি।

আমরা বরাবরেই বলে আসছি সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে সকলের এগিয়ে আসতে হবে। দেশে প্রশিক্ষিত চালকের সংখ্যা খুবই কম। সচেতন নেই চালক এবং পরিবহনের মলিকরা। মালিকদের খেয়াল রাখতে হবে যে কার হাতে তিনি তার মূল্যবান গাড়িটি তুলে দিলেন। এছাড়াও চালক মালিক ব্যতিত আইনশৃংখলা বাহিনীকেও সতর্ক হতে হবে। চালকের লাইসেন্স সঠিক আছে কিনা, গাড়ির কাগজ পত্র ঠিক আছে কিনা এসকল বিষয়ে আইন শৃংখলা বাহিনীকে আরো সজাগ হতে হবে।

এক কথায় বলা যায়, যানবাহনের মালিক, চালক এবং পুলিশ যদি সচেতন হয় তবে সড়ক দুর্ঘটনা কমিয়ে আনা অসম্ভব কিছু নয়। বিআরটিএ চালকদের লাইসেন্স দেয়ার আগে পরীক্ষা করে দেখার প্রয়োজন যাকে লাইসেন্স দেওয়া হচ্ছে তিনি লাইসেন্স পাওয়ার উপযুক্ত কিনা। চালকদের আইনের আওতায় এনে কঠিন শাস্তি দিলে সড়ক দুর্ঘটনা কমে আসবে। যদি দুর্ঘটনার পরেও চালকদের কোনো শাস্তি না হয় তবে সড়ক দুর্ঘটনা কমবে না বরং বৃদ্ধি পাবে।

বিআরটিএ থেকে জানা যায়, বর্তমানে যতগুলো গাড়ি সড়কে চলছে তার ৫০ শতাংশ চালকের কোনো লাইসেন্স নেই। তবুও এরা আইনের চোখের সামনে দিব্যি গাড়ি চালাচ্ছে। এসকল লাইসেন্স বিহীন চালকরাই দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ। অথচ প্রশাসন এবং আইন শৃংখলা বাহিনী এই বিষয়ে নিরব দর্শকমাত্র।

এত কিছুর পরেও যদি এই সড়ক দুর্ঘটনা নামক হত্যকান্ড বন্ধ না হয় তবে সেটা সরকারের অক্ষমতাও বলা যায়। দেশের মানুষের জন্যই সরকার। তাদের সুখে দুখে পাশে থাকার জন্যই ভোট দিয়ে সরকার নির্বাচন করে জনগণ। এখন সেই জনগন গুলো যদি রোজ রোজ সড়কে প্রাণ হারায় তার দায়ভার অবশ্যই সরকারের নিতে হবে। সরকারকে এই বিষয় নিয়ে ভাবতে হবে। গভীর ভাবে পর্যবেক্ষণ করতে হবে এই বিষয়টি নিয়ে। মনে রাখতে হবে একটি প্রাণ চলে যাওয়া মানে একটি পরিবার ধ্বংস হয়ে যাওয়া। আমরা রাজীবের মৃত্যু থেকেও সেটা দেখতে পারি। এতো কিছুর পরেও কেমনে সড়কে প্রতিদিন সানুষ প্রাণ হারায় সেটা সত্যি সত্যিই ভাবনার বিষয়।

তাই সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে চাওয়া, এই সড়ক দুর্ঘটনার মতো জঘন্য বিষয়টির সমাধানে আপনার ভূমিকা একান্ত জরুরী।

লেখক: প্রাবন্ধিক, কলামিস্ট ও শিক্ষার্থী, ইমেইল: azharmahmud705@gmail.com

শেয়ার করুন