ইভিএম বিতর্কে জনমত গুরুত্বপূর্ণ

.

মাহমুদুল হক আনসারী : আগামী সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে উত্তপ্ত রাজনৈতিক অঙ্গনে এখন বিতর্ক চলছে। এরমধ্যেই ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ব্যবহার প্রসঙ্গে হঠাৎই আরপিও সংশোধন করে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের বিষয়টি নির্বাচন কমিশনকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে।আবার সাধারণে আলোচনা-সমালোচনার ঝড়ও তুলেছে। খোদ নির্বাচন কমিশনই দ্বিধা বিভক্ত, বেঁকে বসেছেন একজন নির্বাচন কমিশনার। মোদ্দা কথা, মাত্র তিন/চার মাস আগে ইভিএমের ব্যবহার সম্বন্ধে সকলকে অবহিত করাও সম্ভব নয়_সবার আগে এ প্রসঙ্গটাই উঠে আসছে। তদুপরি বিপুল সংখ্যক ইভিএম মেশিন ক্রয় সম্পন্নের বিষয়টিও রয়েছে। তবে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, ক্ষমতাসীনদের ইভিএম ব্যবহার প্রতিপক্ষকে ব্যাস্ত রাখার একটি কৌশল মাত্র।

লেখক : মাহমুদুল হক আনসারী

বিভিন্ন রাজনৈতিক ঐক্য গঠনের মাধ্যমে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার ও লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরীর লক্ষ্যে পরিচালিত আন্দোলনকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার পরিকল্পনা হিসেবে দেখছেন অনেকে।এরপরও আমাদের ভেবে দেখতে হবে সম্প্রতি নির্বাচন কমিশন একাদশ জাতীয় নির্বাচনে ১০০ আসনে ইভিএম ব্যবহারের প্রস্তাব অনুমোদন করা প্রসঙ্গে।এটা যদি বিশেষ কোনো মহলের ইঙ্গিতে হয়ে থাকে, তাহলে নির্বাচন কমিশন সচ্ছতা ও নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়ে।বাংলাদেশের ভোটার এখনো ভোট সম্পর্কে সচ্ছ ধারণা পোষণ করে না।তারা ইভিএম বোঝে না।ইভিএম বোঝাতে আরো সময় নিতে হবে।যেখানে দেশের রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে বিতর্ক রয়েছে সেখানে সাধারণ ভোটারদের প্রশ্ন থাকা স্বাভাবিক বিষয়।যুক্তরাষ্ট্র, ভারতসহ ইভিএম প্রস্তুতকারী দেশেই ইভিএম ব্যবহার নিয়ে বিতর্ক। ১৯৬০ সালের প্রথম যুক্তরাষ্ট্রেই ইভিএম প্রস্তুত করা হয়।এর কার্য্কারিতা নিয়ে সেদেশেই কঠোর আন্দোলন বিতর্ক হয়েছে।বিশেষত বিআরই পদ্ধতিতে ই ভোটিংয়ের ফলে নির্বানী কারচুপির ব্যাপক আশংকা থেকে যায়।এমনকি আমাদের নির্বাচন কমিশনারই এর ব্যবহার ও প্রয়োজনীয় কারিগরি দক্ষতা সম্পর্কে ধারণা ও জনবলের অভাব। আরপিও সংশোধন ও ইভিএমের ব্যবহার প্রসঙ্গে নির্বাচনে অংশগ্রহণকারীদের মতামত এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। রাজনৈতিক দলের মতামত উপেক্ষা করে এক তরফা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে এ পন্থা চাপিয়ে দিলে নির্বাচনী সংকট আরো বৃদ্ধি পাবে।

ইতিমধ্যেই জাতীয় নির্বাচনকে সারা দেশে সমস্যা মুক্ত রাখার ব্যাপারে প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সংশয় ও সন্দেহ জনগণকে আস্থার সংকটে ফেলেছে।তার ওই বক্তব্য নির্বাচন কমিশনের গ্রহণযোগ্যতা ও ক্ষমতাকে জনগণের নিকট হেই করেছে এবং প্রশ্নের সম্মুখীন হয়েছে।এরপরও যদি একতরফা ভাবে ইভিএম মেশিন ক্রয় করা হয়, আগামী সংসদ নির্বাচনে এটি ব্যবহৃত হয়, তবে তা হবে গোটা জাতির জন্য প্রশ্নবিদ্ধ একটা নির্বাচন।এ ধরনের নির্বাচন দিয়ে রাজনৈতিক পরিবেশ অস্থির হোক সেটা সাধারণ জনগণ চায় না।দেশের সবগুলো দল ও মতের প্রতি শ্রদ্ধা ভালোবাসা প্রদর্শন করে ব্যালেট পেপারের ভোটিং পদ্ধতি চালু রাখাই হবে বর্তমান সময়ের জন্য একটি সঠিক পদক্ষেপ।স্বচ্ছ ব্যালেট পেপার নির্ভূল ভোট প্রয়োগ প্রদানের মাধ্যমে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন হতে পারে।এ জন্য নির্বাচনকালীন সরকার নির্বাচন কমিশন উভয়কেই গ্রহণযোগ্য পদক্ষেপ নিতে হবে।

জনগণ মনে করে নির্বাচনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সব মহল যোগাযোগের মাধ্যমে এক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত নেবে।মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ইভিএম বিষয়ে ব্যবহারের সিদ্ধান্ত ভেবে চিন্তে নিতে বলেছেন।প্রয়োজনে দু একটি এলাকা বা উপজেলায় পরীক্ষামূলকভাবে ইভিএম ব্যবহার করা যেতে পারে।তবে ইভিএমে ভোট নেওয়া না নেওয়া এসব বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের একতেয়ার বলে মনে করে ক্ষমতাসীন দল।সুষ্ঠু নিরপেক্ষ জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে গ্রহণযোগ্য একটি নির্বাচন সম্পন্ন করতে হলে অবশ্যই সব দল ও মতের পরামর্শে সিদ্ধান্ত নিয়ে নির্বাচন সম্পন্ন করা দরকার।এক্ষেত্রে ৫ জানুয়ারীর মতো আরেকটি একাদশ জাতীয় নির্বাচন অনুষ্টিত হলে তা জনগণ ও বিশ্ববাসীর নিকট আবার প্রশ্নবিদ্ধ হবে।সুতারাং নির্বাচন কমিশনকে ভেবে চিন্তে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন উপহার দেয়ার জন্য জনগণের দাবী।

লেখক : প্রাবন্ধিক ও গবেষক, ইমেইল : mh.hoqueansari@gmail.com

শেয়ার করুন