মহররমের শিক্ষায় উজ্জীবিত হই

.

মাহমুদুল হক আনসারী : বছর ঘুরে আরবী মাসের “মাহে মুহররম” মুসলিম সমাজে ফিরে আসে।ঐতিহাসিকভাবে তাৎপর্য্পূর্ণ মুহররম মাস জানান দিয়ে যায়মুসলিম সমাজকে।এ মাস মুসলিম সমাজে যেভাবে গুরুত্বপূর্ণ ইয়াহূদী খ্রিষ্টানদের কাছেও কম গুরুত্ব নয়।বিশেষত মুসলমানদের নিকট কারবালার প্রান্তরে ইমাম হোসাইন (র:)এর শাহাদাতের কারণটি বেশি তাৎপর্য্পূর্ণ ও বেদনাদায়ক।আশূরার এ ঘটনাবলী ইতিহাসের শুরু থেকে শত শত বছর ধরে বিভিন্ন প্রেক্ষাপট ও ঘটনা জড়িয়ে আছে।এখানে দুটি দিকের আলোচনার পথ দেখা যায়।একটি হলো পৃথিবীর সূচনালগ্ন থেকে হযরত মুহাম্মদ (স:) ও তার সাহাবাদের যুগ পর্য্ন্ত।

আর দ্বিতীয়টি হলো কারবালার প্রান্তরে ইমাম হোসাইন (র:)এর শাহাদাতের বেদনা বিভোর ঘটনা।এ দুটি দিকেরই ঐতিহাসিকভাবে বিশেষ গুরুত্ববহন করে।প্রথম প্রেক্ষাপটের আলোকে আমরা দেখতে পাই আশূরার দিবসটি সয়ং রাসূল (স:) ও তাঁর সাহাবা (র:) বিশেস সম্মান ও গুরুত্বের সাথে দেখেছেন।এ দিনের জন্য বিশেষ আমলও করে গেছেন।আর দ্বিতীয় যেটি সেটি হচ্ছে ইসলামি খেলাফত রাষ্ট্র প্রতিষ্টায় বৈপ্লবিক একটি পরিবর্তন।

এ পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে রাজতান্ত্রিক শাসনের জন্ম হয়।এ দুটি প্রেক্ষাপট সামনে রেখে আজ আশূরার তাৎপর্য্ আমল ও
মুসলিম সমাজে এর প্রভাব আশূরার শিক্ষা এবং তাৎপর্য্ বাস্তবায়ন নিয়ে অনেক কথা হচ্ছে। একটা বিষয় এখানে মনে রাখতে হবে কারবালার নির্মম ঘটনাটি সংগঠিত হয়েছিল হিজরী ৬৬১ সালে। অর্থাৎ রাসূল (স:)এর ওফাতের অর্ধ শতাব্দী পরে।তাই আশূরার দিনের আমলের সাথে কারবালার প্রান্তরের কোনো যুগসূত্র পাওয়া যাচ্ছে না। কারণ এ বিষয়ে প্রত্যেক মুসলমান মাত্রই অবহিত যে রাসূল (স:)এর ওফাতের পর শরিয়তের আর নতুন কোনো বিধান সংযোজন বা বিয়োজনের বিন্দুমাত্র অবকাশ নেই।আশূরার প্রসঙ্গ আসলেই সাধারণ মুসলমানদের মানসপটে
কারবালার স্মৃতি ভেসে উঠে।আজকের দুনিয়ায়ও কারবালার ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটের উপর বেশি আলোচনা মাহফিল মিলাদ পর্যালোচনা দেখা যায়।এ বিষয়ে স্বাভাবিক ভাবেই একটা প্রশ্ন তৈরী হয় যে ঠিক কী কারণে কারবালায় মুসলমানদের মাঝে এমন ধরনের অন্তবিরোধ রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ হলো।

আর কেনোই বা রাসূল (স:)এর প্রাণপ্রিয় পৌত্রকে শাহাদাত বরণ করতে হলো?এসব প্রশ্নের জবাব ইতিহাসে সন্নিবেশিত হয়েছে।রাসূল (স:)এর ওফাতের পর প্রথম খলিফা হযরত আবু বকর (র:) থেকে শুরু করে যে সময়টা খুলাফায়ে রাশেদিনের যুগ হিসেবে স্বীকৃত সে, সময়কার খলিফা নির্বাচন পদ্ধতির সাথে কারবালার ঘটনার নায়ক আমিরে মোয়াবিয়ার পূত্র ইয়াযিদের শাসক নির্বাচিত হওয়ার পদ্ধতিতে বড় রকমের একটা পার্থক্য সূচীত হয়।ফলে যার পরিণতির কারণে কারবালার প্রান্তরে ইমাম হোসাইনের শাহাদাত সংগঠিত হয়।বিষয়টি মুসলমানদের কাছে স্পষ্ট না হয় তবে ইমাম হোসাইন (র:) শাহাদাতের কারণ ও তাৎপর্য্ সঠিকভাবে অনুধাবন করা পাঠকের নিকট
কঠিন হবে। রাসূল (স:) এর জন্মের সময় মক্কায় গোত্রভিত্তিক শাসন ব্যবস্থা চালু ছিল। শুধুমাত্র পারস্য, সিরিয়িা, মিশর, চীন, ভারত ইত্যাদি কয়েকটি রাষ্ট্রে কেন্দ্রীয় শাসন ব্যবস্থা চালু ছিল। যার ভিত্তি ছিল রাজতন্ত্র।এছাড়া সমগ্র বিশ্বেই গোষ্ঠীপ্রথা প্রচলিত ছিল বলে ইতিহাসের স্বাক্ষী। রাজতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থায় রাজা ছিল সর্বাত্তকবাদী শাসক ও সার্বভৌম ক্ষমতার মালিক।সাধারণ জনগণ ছিল তাদের আজ্ঞাবহ প্রজা।এ ব্যবস্থাটি ছিল মানুষের উপর মানুষের প্রভূত্বমূলক।কিন্তু ইসলামের আগমনের পর এ চিরাচরিত শাসন ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন সাধিত হয়।মানুষের উপর মানুষের প্রভূত্বের পরিবর্তে আল্লাহর কর্তৃত্ব ও সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্টিত হয়।রাসূল (স:) প্রতিষ্ঠিত এ রাষ্ট্র ব্যবস্থার কতিপয় মৌলিক বৈশিষ্ঠ্য ছিল, যেমন রাজতান্ত্রিক শাসনকাঠামোয় স্বীকৃত ছিল না।তদুপরি ইসলামি রাষ্ট্র ব্যবস্থার কিছু মৌলিক লক্ষ্য উদ্দেশ্য আছে, যার বাস্তবায়ন রাজতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থায় সম্ভব নয়।

রাজতন্ত্র আর ইসলামি শাসতন্ত্রের মধ্যে ব্যাপক দূরত্ব রয়েছে।ছোট্ট লেখায় রাজতন্ত্র আর ইসলামি খেলাফত নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সম্ভব নয়।ইয়াযিদ যখন পূর্ণ জনসমর্থনের পরিবর্তে উত্তরাধিকার সূত্রে মোয়াবিয়া কর্তৃক শাসনভার প্রাপ্ত হন তখন বিচক্ষণ ও দূরদর্শী হোসাইন (র:) নিশ্চিত বুঝতে পেরেছিলেন যে, রাসূল (স:)এর প্রতিষ্টিত রাষ্ট্র কাঠামোতে কত বড় একটি ফাটল ধরতে যাচ্ছে এবং এর পরিণতিতে ইসলামি খেলাফতের সিংহাসন চিরদিনের জন্য চুরমার হযে পড়বে। তার এ আশংকা অক্ষরে অক্ষরে পরবর্তিতে প্রমাণিত হয়।ইয়াযিদ মাত্র চার বছর ক্ষমতায় অধিষ্টিত থাকার পর উমাইয়া শাসন শুরু হয়।এরই ধারাবাহিকতায় আব্বাসিয় শাসণ প্রতিস্টিত হয়। পর্যায়ক্রমে
ইসলামি খেলাফত ব্যবস্থা চিরদিনের জন্য বিদঅয় নিযে রাজতান্ত্রিক শাসন ব্যবস্থায় উপনীত হয়। তখন ওইসব শাসকদের কাগজে কলমে আমলে ইসলামি সংবিধান থাকলেও ক্ষমতা ও প্রতিপত্তির প্রভাবে তা বাস্তবে রূপ ধারণ করতে পারে না।আশূরার দিনের ঐতিহাসিক কিছু তাৎপর্য্ হলো- এ দিনে হযরত আদম (আ:)এর তওবা কবুল হয়েছিল আল্লাহর দরবারে।হযরত নূহ (আ:) মহাপ্লাবন থেকে মুক্তি পান।

এ দিনে ফেরাউন ও তার দলকে নীলনদে ডুবিয়ে মূসা (আ:) ও তার অনুসারীদের মুক্তি হয়।হযরত ইউনূস (আ:)কে আল্লাহ মাছের পেট থেকে মুক্তি দেন। হযরত ইবরাহিম (আ:) জন্মলাভ করেন।হযরত ইউসূফ (আ:) কূপ থেকে মুক্তি পান।হযরত ইয়াকূব (আ:) এর চক্ষু ফিরিয়ে দেয়া হয়।হযরত দাঊদ (আ:) এর তওবা কবুল করা হয়। হযরত ঈসা
(আ:) এর জন্ম হয় এবং এ দিবসে আসমানে উঠিয়ে নেয়া হয়।এ দিনে রাসূল (স:)এর আগের ও পরের সব গুণাহ ক্ষমা করে দেয়া হয়।এ দশজন নবী রাসূল ছাড়াও আরো অনেকের ঐতিহাসিক ঘটনাবহুল তাৎপর্য্ এ দিবসে পাওয়া যায়।এসব ঘটনার পর্যালোচনায় দেখা যায় আশূরা বা মহররম মাসের ১০ তারিখ বিশেষভাবে মুসলিম সমাজে ঐতিহাসিক।আশূরার দিনের কতিপয় গুরুত্বপূর্ণ আমল বা কর্ম রয়েছে।যেগুলো পাঠকগণ নিজ প্রয়োজনে জেনে নেওয়া দরকার।আমি এখানে আশূরাকে সামনে নিয়ে শুধু এটুকুই বলতে চাই, এ দিবসে শুধু কতিপয় আনুষ্টানিকতা শেষ করলে দিবসের
দায়িত্ব শেষ হবে না।সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায় মুসলিম সমাজকে আশূরার অনূপ্রেরণায় এগিয়ে যেতে হবে। অন্যায় জুলুম ব্যাভিচার অপশাসনের বিরোদ্ধে সোচ্চার ও প্রতিবাদী হতে হবে।আশূরাকে উদ্দেশ্য করে একটি গোষ্ঠী কতিপয় ইসলাম বিরোধী কর্মকান্ডের প্রচলন করে থাকে। যা কখনো শরিয়তের বিধান সম্মত নয়।সমস্ত ধরনের অপসংস্কৃতি, শিরক ও বিধআতমুক্তভাবে ভাবগাম্ভির্যের সাথে আশূরা পালন করা চায়।

লেখক : প্রাবন্ধিক ও গবেষক, ইমেইল:mh.hoqueansari@gmail.com

শেয়ার করুন