রাজনীতির মারপ্যাচে জনগণ

.

মাহমুদুল হক আনসারী : দেশের রাজনীতি কোন দিকে যাচ্ছে সেটা এখন জনগণ ঠিকভাবে ধরে নিতে পারছে না।রাজনীতিতে সবসময় একটা তাস খেলা চলে। রাজনীতির তাস খেলা বুঝা কঠিন। কখন কোন দিক থেকে কী খেলা শুরু হয় তা সাধারণ মানুষ বুঝে উঠতে পারে না।তবে যারা রাজনীতির সাথে সরাসরি সম্পৃক্ত তারা অনেকটাই ধরে নিতে পারে রাজনীতির হাওয়া কোন দিকে বইছে। দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার দেশসমূহে সবসময় একটা রাজনৈতিক উত্তপ্ত হাওয়া জনগণ দেখতে পায়। এসব হাওয়ার সাথে জনগণের একটা তাল মিলিয়ে চলার অভ্যাসও তৈরী হয়ে আছে। বাংলাদেশ এ অঞ্চলের একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশ। এ দেশের নাম গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ। জনগণের মতের রায়ের ভিত্তিতে স্বাধীনতার পর হতে দেশ শাসন হয়ে আসছে। বহু দলের জোটের সৃষ্টি হয়েছে। দেশ স্বাধীন হওয়ার সময় দেশ ও জনগণের অর্থনৈতিক সামাজিক ধর্মীয় অবস্থা ভালো না হলেও বর্তমানে এ অবস্থার অনেক পরিবর্তন হয়েছে। দেশ স্বাধীন হওয়ার কারণে এ দেশের জনগণ শিক্ষায় দীক্ষায় সংস্কৃতিতে এগিয়ে গেছে। অর্থনীতিতে ব্যাপক সফলতা অর্জন করেছে ব্যাক্তি থেকে পরিবার রাষ্ট্র পর্য্ন্ত।বাংলাদেশের জনগণ পৃথিবীর অনেকগুলো দেশে কর্মের হাতকে ব্যবহার করে মূল্যবান রেমিটেন্স দেশে পাঠাচ্ছে। বিদেশি বিনিয়োগ এবং ইপিজেড এখানে গড়ে উঠছে। দেশে নানাভাবে সরকারি বেসরকারি উদ্যোগে কর্মসংস্থান তৈরী হচ্ছে। শিক্ষার হার প্রতিনিয়ত বাড়ছে। শিক্ষিত জনশক্তি প্রচুর ভাবে তৈরী হচ্ছে।

লেখক : মাহমুদুল হক আনসারী

সব শ্রেণীর শিক্ষিত মানুষের কোনো অভাব দেশে নেই। শহর গ্রাম সবখানেই নতুন নতুন শিক্ষাপ্রতিষ্টান ও কারিগরী ইন্সটিটিউট প্রতিষ্টিত হচ্ছে। তথ্য প্র্রযুক্তি শিক্ষা এখন দেশের গাঁ গ্রামে বসেই পাচ্ছে। এক কথায় শিক্ষা চাকরী বিনিয়োগে দেশ এখন বহু এগিয়ে।তবে এগিয়ে যাওয়ার পেছনে এ দেশে যারা রাষ্ট্রীয় দায়িত্বে ছিলেন তাদের অবদান কম নয়।

সঠিকভাবে ক্ষমতাসীন ওইসব রাজনৈতিক দলের সঠিকভাবে কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়নের কারণে দেশ আজ
এ পর্যায়ে এসেছে।বাংলাদেশ মাত্র কয়েক বছর আগেও অনুন্নত দেশের কাতারে ছিল। আর এখন উন্নয়নশীল দেশের সারিতে উঠেছে।সবদিকেই বাংলাদেশ এবং দেশের জনগণ এগিয়ে গেছে এবং যাচ্ছে। এ ধারাকে অব্যাহত রাখতে হলে রাজনৈতিক স্থিতিশীল কর্মসূচী ও পরিবেশ দরকার। যেহেতু বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক ও স্বাধীন একটি দেশ। এখানে গণতন্ত্রের নিয়মে রাজনীতি থাকা চায়। অগণতান্ত্রিক পন্থায় রাজনীতি কর্মসূচী কারো কাম্য নয়।অগণতান্ত্রিক পন্থায় ক্ষমতায় যাওয়া অথবা ক্ষমতা থেকে নামিয়ে ফেলার রাজনীতি জনগণ গ্রহণ করে না। গণতান্ত্রিক পরিবেশ গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে নির্বাচনের মাধ্যমে গণতন্ত্রের ভাষা জনগণ চায়। গণতন্ত্রের ভাষা এবং সুষ্ঠু ভোট প্রয়োগের মাধ্যমে সরকারের পরিবর্তন চায় জনগণ।যারা সারাবছর জনগণের সুখে দুখে কাছে থেকে পাশে ছিলো তাদের নির্বাচনে কাছে চায় জনগণ।যেসব রাজনৈতিক দলের সাথে জনগণের মধুর সম্পর্ক তাদেরকেই নির্বাচনে পেতে চায় ভোটারগণ। এর বিপরীত
যাদের সাথে সমাজের মানুষের কোনো দেখা হয় নি, যাদের চেনা জানা নেই এমন ধরনের দল ও প্রার্থী থেকে জনগণ সবসময় অনেক দূরে থাকে।কথা হলো যাদেরকে জনগণ চিনে না বোঝে না সুখে দুখে জনগণ যাদেরকে পায় নি তাদেরকে কোন দু:খে জনগণ ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবে?অথবা ওইসব দলের নেতা কর্মী যদি ভোটের জন্য জনগণের কাছে যায় কেনই বা তাদেরকে জনগণ ভোট দিবে?যারা জনগণ ও দেশ উন্নয়নের সাথে সামান্যতম অবদান রাখে নি তাদের কোনো অবস্থায় ভোটারগণ ভোট দেবে বলে আমি বিশ্বাস করি না।আর তারা যদি ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য নানাভাবে তারা তারা জোটবদ্ধ হয়, তাহলেও ওইসব জোটে জনগণের সমর্থন আসবে বলে মনে হয় না।

আমি মনে করি ওইসব দল জোট জনসম্পৃক্ত নয়। জনসম্পৃক্তের বাইরে যেসব দল জোট সৃষ্টি হয়েছে এসব দল জোট তাদের কাছেই সীমাবদ্ধ।ভোটার পর্য্ন্ত তারা পৌছতে পারবে না। আবার তারা জনগণের সম্পৃক্ত ছাড়া জনগণের সমর্থিত শক্তিশালী দলকে ক্ষমতাচ্যুত, অথবা তাদেরকে অহেতুক ষড়যন্ত্র করে হটিয়ে দেয়ার পায়ঁতারাও করতে দেখা যায়।আসলে ওই ধরনের কতিপয় দল ও জোট বাংলাদেশে গণতন্ত্রের সুবাদে জন্ম নিয়েছে এবং রাজনীতি করছে। নির্বাচন আসলে এ দেশে ওই ধরনের কয়েক ডজন দল রাজনীতির নামে মাট গরম করতে দেখছি।তাদের দল ও জোটের চেয়ে কর্মসূচী ও কথা বড়। গরম গরম বক্তৃতা আর বিবৃতিতে জনগণের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। ওইসব
দলের নেতারা অনেকেই আছেন যারা কোনোদিনও ইউপি মেম্বারও হবে না। তারাই চায় দেশের রাজনৈতিক ফ্লাটফরম পরিবর্তন করতে।ক্ষমতায় গিয়ে বাংলাদেশের রাজনৈতিক অর্থনৈতিক সামাজিক প্রেক্ষাপট পরিবর্তনের কথা বলে তারা।

আসলে তাদের এসব বক্তব্য কর্মসূচীতে জনগণ মুচকি মুচকি হাসে। তারা বৃহৎ দলকে আলটিমেটাম দিয়ে ক্ষমতায় পৌছতে চায়! যা আদৌ বাংলাদেশে সম্ভব নয়।বাংলাদেমের জনগণ, ভোটার অত্যান্ত সচেতন।তারা শিক্ষা দীক্ষায় একসময় অনগ্রসর হলেও এখন এ প্রজন্ম অনেক এগিয়ে। তারা জানে কাদের দিয়ে দেশ চলবে এগিয়ে যাবে জনগণ ও দেশ উপকৃত হবে, এসব ঠিক করেই ভোটের বাক্সে ব্যালেট পেপার ফেলবে। তাহলে এ জনগণকে এতো বোকা ভাবার কী কারণ? বাংলাদেশ একসময় লাজুক থেকে সাহস করে বিভিন্ন ষড়যন্ত্রের বিরোদ্ধে প্রতিবাদ না করলেও এখন আর সে দিন নেই। বর্তমান ক্ষমতাসীন দল এবং দেশের কতিপয় ব্যাক্তি ও প্রতিষ্ঠান সবধরনের বৈরী ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদী। এখানে ষড়যন্ত্রের জাল পেতে দেশকে পেছনে নিয়ে যাওয়ার চক্রান্ত আর ষড়যন্ত্র জনগণ প্রতিহত করবে।রাজনীতির নামে কাউকে ব্যবহার করে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র বাস্তবায়ন করতে দেবে না জনগণ।

সুষ্ঠু নিরপেক্ষ নিবন্ধিত সকল দলের অংশগ্রহনে নির্বাচন চায় জনগণ।এবং সেভাবেই আগামী জাতীয় নির্বাচন হবে।নির্বাচন কমিশন দল নিরপেক্ষ হয়ে দেশ এবং জনগণের পক্ষে সুন্দর একটি নির্বাচন উপহার দেবেন সেটায় এদেশের জনগণের প্রত্যাশা।কোনো ধরনের রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র আর চক্রান্ত করে নির্বাচনকে বানচাল করতে জনগণ দেবে না।দেশি বিদেশি ষড়যন্ত্রের ফাঁদে জনগণ কখনো পা ফেলবে না। যাদের মাধ্যমে দেশ এগিয়ে যাবে, যারা দেশকে পৃথিববীর বুঁকে উন্নতির আসনে প্রতিষ্টিত করবে তাদেরকে জনগণ মূল্যবান রায় দেবে। এক্ষেত্রে কোনো ধরনের ছলচাতুরী করে জনগণের ভোটের মতামত পাল্টানো যাবে না।দেশকে উন্নয়ন অগ্রগতির ধারাবাহিকতা থেকে পিছনে নিয়ে যাওয়ার কোনো ষড়যন্ত্রে জনগণ পা দেবে না। জনগণ উন্নয়নের রাজনীতি চায়। উন্নয়ন কর্মসূচী বান্ধব দলের সাথেই থাকবে এবং আছে।

লেখক : প্রাবন্ধিক ও গবেষক, ইমেইল:mh.hoqueansari@gmail.com

শেয়ার করুন