‘প্রয়োজনে বলি ম্যাজিস্ট্রেটের দাম কত’

জয়নাল আবেদীন পারভেজ

চট্টগ্রাম : চল্লিশোর্ধ পারভেজ। পেশায় ব্যবসায়ী। নগরীর পাঠানটুলি চৌমুহনীর গায়েবী মসজিদ এলাকায় বানছালপাড়া যাওয়ার প্রবেশমুখে আলী মোটরস নামের একটি মোটরস ওয়ার্কশপ রয়েছে। এছাড়াও নগরীর বিভিন্ন এলাকায় নামে-বেনামে অঢেল সম্পত্তি রয়েছে বলেও প্রচার করেন পারভেজ ও তার ছোট ভাই মো. শাহাবুদ্দিন। অভিযোগ রয়েছে তারা দুজনই খুব ধূর্ত। বলে বেড়ান, প্রশাসনের নানান স্তরে তাদের সখ্যতা রয়েছে, থানা-পুলিশ-ম্যাজিস্ট্রেট কিনে নেন টাকার বিনিময়ে। মূলত এসব দাম্ভিকতা আওড়ে সাধারণ মানুষকে ধোকা দেন, নিজেদের বশে নেয়ার চেষ্টা করেন।

সম্প্রতি বায়েজিদ বোস্তামী থানার আরেফিন নগর এলাকায় ভূমি দখলকে কেন্দ্র করে স্থানীয়দের সাথে হামলা পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটে।পারভেজ-শাহাবুদ্দিন বাহিনীর হামলায় একই পরিবারের ৩জন গুরুতর আহত হন্। ঘটনায় উভয় পক্ষে মামলা রুজু করা হয়। ওই ঘটনায় এলাকার কিছু নিরিহ মানুষকে মামলার জালে ফেলেছেন। আবার কিছু মানুষকে তাদের বশে নেয়ার চেষ্টা করছেন। ওই চেষ্টার ধারাবাহিকতায় নগরীর একটি খাবার হোটেলে ডেকে নেন বেশ কয়েকজনকে। সেখানে নানান প্রলোভনের সাথে দম্ভোক্তি ছুঁড়ে দেন পারভেজ। নিরীহ এলাকাবাসীকে বুঝাতে চেষ্টা করেন পারভেজরা খুবই শক্তিশালী। প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরে তাদের সখ্যতা রয়েছে, তার হাত অনেক বড়। অতএব তার হয়ে কাজ করলে কোন মামলা-মোকদ্দমায় হয়রানি করা হবে না।

আরো পড়ুন : বিমানের সিটের পেছন থেকে ১০ কোটি টাকার স্বর্ণ উদ্ধার
আরো পড়ুন : সড়ক দুর্ঘটনায় আহত রামগড়ের মাদ্রাসা শিক্ষক বেঁচে নেই

এমন সব কথোপকথনের এক পর্যায়ে পারভেজ টেবিল চাপড়িয়ে বলেন-‘…আমার এক টাকার কাজ এক লাখ টাকা খরচ করমু। কিন্তু পিছে হাঁটার সুযোগ নাই। প্রয়োজনে বলি ম্যাজিস্ট্রেট তোর দাম কত, বল। এই কোর্টে আমার এমন অবস্থা গেছে, আমি ৪৩ লাখ টাকা খরচ করছি। ২০১৩ সাল থেকে এই কোর্টে। মশিউর রহমান চৌধুরী থেকে, নুরে আলম ভূইয়া থেকে আরম্ভ করি মাসুদুল ইসলাম এবং লুৎফুল মুজিব নায়েক থেকে শুরু করে যারা…। তখন থেকে আমি এ কোর্টে। শুধু শাহাবুদ্দিনকে একদিন এরেস্ট করেছিল এক মামলায়। ছোট্ট একটি মামলায়। পুলিশের টেবিলকে তিনটা টক্করা লাত্থি দি ফেলে বলছি যে, তোর দাম কত? এই কোর্টে আমি তখনকার এসি প্রসিকিউশনকে বলছিলাম, স্যার ম্যাজিস্ট্রেটের দাম কত। কয় কেন? আমি বলছি আমার ভাইকে যে কোন মূল্যে জামিন দিতে হবে। কাগজ দেখি কয় জামিন হবে। জামিন করাই আনি এক লাখ টাকার একটা বান্ডিল দিছি। মামলা কত জানছ, মাত্র ত্রিশ হাজার টাকার।’

জয়নাল আবেদীন পারভেজের এমন দম্ভোক্তি-আস্ফালন শুনে এলাকাবাসীদের কয়েকজন ভয়ে আতকে উঠেন। তারা এ প্রতিবেদককে বলেন, ২০২ একর জায়গার কথিত মালিকানা দাবী করছে পারভেজ। মারামারি দাঙ্গা-হাঙ্গামা করে ওই ভূমি দখল করতে চায়। অহেতুক ঝামেলা, মামলার জালে জড়িয়ে নিরীহ মানুষকে হয়রানি করছে। আমাদেরকে নানাভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে তাদের শক্তি-সামর্থ্য জানান দিতে চাইছে। বিষয়টি আইন-শৃংখলা বাহিনীর নজরে আনা প্রয়োজন বলেও দাবী করেন ভুক্তভোগীরা।

এ প্রসঙ্গে জানতে নয়াবাংলা থেকে যোগাযোগ করা হলে জয়নাল আবেদীন পারভেজ পুরো বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন-আমি কেন এসব বলতে যাব। আমি কেন ভয় দেখাব। আমি কি বাঘ, না ভাল্লুক। আর বলে থাকলে তো রেকর্ড আছে, প্রমাণ আছে। সেগুলো নিয়ে আমার কাছে আসেন।

এলাকাবাসীর সাথে কথিত ভূমি মালিক পারভেজ এবং শাহাবুদ্দিনের কথোপকথনের দীর্ঘ ৫৬ মিনিটের একটি অডিও রেকর্ড নয়াবাংলায় সংরক্ষিত আছে। যার কিঞ্চিৎ অংশ তুলে ধরা হলো। ওই কথোপকথনে আইন শৃংখলা বাহিনী এবং চিকিৎসকসহ বিভিন্ন পেশাজীবীদের অশালীন ভাষায় কথা বলতেও কুণ্ঠাবোধ করেননি ধূর্ত পারভেজ।

সরেজমিন বায়েজিদ বোস্তামী থানার আরেফিন নগরের কেন্দ্রীয় কবরস্থান এলাকায় গেলে গণমাধ্যম কর্মী পরিচয় পাওয়ার পর বহু ভুক্তভোগী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ম্যাজিষ্ট্রেট কিনেন তার প্রয়োজন মতো_প্রকাশ্য জনসমক্ষে এমন দম্ভোক্তি প্রকাশ করেছেন কথিত ভূমি মালিক পারভেজ। তার শ্বশুর মেজর। প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরে তাদের লোকের অভাব নাই। টেবিল চাপড়িয়ে হুংকার দিয়ে পারভেজ বলেছেন, চট্টগ্রাম কোর্টে তিনি অনেক বড় খেলোয়াড়। এসি প্রসিকিউশনের টেবিলে লাত্থি দিতেও দ্বিধা করেন না। তার দাপটে সকলেই তটস্থ। এক পর্যায়ে পারভেজ বলেন, তার প্রস্তাবে সায় দিয়ে তার কথা মতো চললে, তার সাথে কাজ করলে সব কিছু তিনিই সামলাবেন। চলমান মামলা-মোকদ্দমাও তিনি মোকাবেলা করবেন। অন্যথায় বিভিন্ন মামলায় ফাঁসানোর হুমকি দেন পারভেজ। অসহায় এলাকাবাসী বলেন, বর্তমানে তাদের মামলা-হামলার ভয়ে দিন যাপন করছি। আমরা নিরীহ মানুষ। এতসব বুঝি না, আমরা এমন দুষ্টু চক্র থেকে বাঁচতে চাই। শান্তি ও নিরাপত্তা চাই, প্রশাসনের সুদৃষ্টি চাই।

শেয়ার করুন